সোমবার, ২১ জুন ২০২১, ১১:০৫ অপরাহ্ন
Logo
শিরোনাম :
১৪ জুন বিশ্ব রক্তদাতা দিবস-worldkhobor24 মুজিববর্ষ উপলক্ষে গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলায় ওয়াটার এন্ড স্যানিটেশন প্রকল্পের উদ্বোধন ও অবহিতকরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজ ৭ জুন ঐতিহাসিক ছয় দফা দিবস। শৈলেন হোমিও কেয়ারের নতুন স্থানে শুভ উদ্বোধন ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ইয়াস-ওয়ার্ল্ড খরব২৪ সাংবাদিক রোজিনাকে হেনস্তা ও গ্রেপ্তার এবং অবশেষে কারাগারে প্রেরণ ১৫ মে – বিশ্ব পরিবার দিবস। ইসরায়েলি এবং ফিলিস্তিনিদের মধ্যে লড়াই এখন যেরকম তীব্র হয়ে উঠেছে তা একটি “পূর্ণাঙ্গ যুদ্ধে” রূপ নিতে পারে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছে জাতিসংঘ। ওয়ার্ল্ড খবর২৪-এর পক্ষ থেকে সবাইকে ঈদ-উল-ফিতরের শুভেচ্ছা ও ভালোবাসা। একটা ঈদ বাড়িতে না করলে কী হয়’-মাননীয় প্রধানমন্ত্রী

ছেলের শিক্ষকের কাছে আব্রাহাম লিংকন তার চিঠিতে কি লিখেছিলেন?

ডা.লরেন্স তীমু বৈরাগী / ৬৪ বার
আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ৬ মে, ২০২১

০৬-০৫-২০২১ খ্রী:রোজ:বৃহস্পতিবার।
ওয়ার্ল্ড খবর২৪
লেখক-ডা.লরেন্স তীমু বৈরাগী।

আমারা অনেক পিতা-মাতা, শিক্ষক-শিক্ষিকারা সন্তানদের বুঝাতে উদাহরণ দিয়ে থাকি আব্রাহাম লিংকনের চিঠির লেখার কথা গুলো।
সেই চিঠির কথা আমরাও সবাই বিভিন্ন ভাবে, বিভিন্ন সময়ে একে অপরের সাথে আলোচনাও করে থাকি।
তা হলে কি আছে সেই চিঠিতে?
এবং আব্রাহাম লিংকর কে?তিনি কি করতেন? কেন তার ছেলের শিক্ষকের কাছে এই চিঠি লিখেছিলেন ইত্যাদি ইত্যাদি। অনেক প্রশ্ন?

আমরা কত জন তার জীবন সম্পর্কে ও তার চিঠি সম্পর্কে জানি ও বলতে পারি?

প্রশ্নটি পাঠকদের কাছে রইল।

জানি না কে কি উত্তর দিবেন, তবে এটা সত্যি যে, সঠিক ভাবে যদি আমরা এই চিঠিটা পড়ি ও বূঝি তাহলে আমাদের ও আমাদের সন্তাদের জীবনে অনেক উপকার ও পরিবর্তনে সহায়তা করবে
এটা আমি ব্যক্তি গত ভাবে বিশ্বাস করি।

পৃথিবীর যে কোন রাজনৈতিক নেতা তাঁদের কর্মের জন্য স্মরণীয় ও বরণীয় হয়ে থাকে,কেউ সুকর্ম আবার কেউ কুকর্ম করে।
কিন্তু আব্রাহাম লিংকন অনেকগুলো কারণেই তিনি ইতিহাসের পাতায় অমর হয়ে আছেন।

বিশেষ করে ১৮৬৩ সালের ১৮ নভেম্বর গেটিসবার্গে মাত্র তিন মিনিটে ২৭২ শব্দের এক ভাষণ দেন।
অথচ আজ প্রায় দেড়’শ বছর পরও রাজনীতি বিজ্ঞানের গবেষকরা বিনম্র শ্রদ্ধায় স্মরণ করেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ষোড়শ রাষ্ট্রপতি আব্রাহাম লিংকনকে।

রিপাবলিকান পার্টির প্রথম রাষ্ট্রপতি এবং ১৮৬১ হতে ১৮৬৫ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত আব্রাহাম লিংকন তাঁর পুত্রের স্কুলের প্রধান শিক্ষকের কাছে একটি চিঠি লিখেছিলেন। যা পরবর্তী সময়ে ঐতিহাসিক মর্যাদা লাভ করে।
আজ থেকে এতো বছর পরেও তিনি তাঁর আট বছর বয়সী পুত্র জর্জ প্যাটেনের স্কুলের প্রধান শিক্ষককে লেখেন সেই চিঠি যা ঐতিহাসিক মর্যাদা লাভ করেছে।

আজও অনুকরণীয় ও অনুসরণীয় হয়ে আছে আব্রাহাম লিংকনের সেই চিঠি।

চিঠিটি পড়ার পূর্বে আমরা তার সম্পর্কে কিছুটা ধারণা নি, কারণ তা না হলে অসম্পূর্ণতা থেকে যাবে


আব্রাহাম লিংকন এর জন্ম ফেব্রুয়ারি ১২, ১৮০৯খ্রীষ্টাব্দে আর তার মৃত্যু এপ্রিল ১৫, ১৮৬৫ খ্রীষ্টাব্দে।

১৮৬০ সালে রিপাবলিকান পার্টির পক্ষ থেকে আব্রাহাম লিংকন আমেরিকার ১৬ তম রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হন । আমেরিকার প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে ১৫ এপ্রিল ১৮৬৫ সাল পর্যন্ত তিনি সফলভাবে দায়িত্ব পালন করেন। লিংকন ছিলেন মিষ্টভাষী এবং বিনয়ী। জনতাকে আকৃষ্ট করার অসাধারণ ক্ষমতা ছিল তাঁর। তিনিই ছিলেন রিপাবলিকান পার্টির প্রথম রাষ্ট্রপতি । ১৮৬১ থেকে ১৮৬৫ পর্যন্ত তিনি রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব পালন করেন ।

তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে দাস প্রথার অবসান ঘটান । ১৮৬৩ সালে মুক্তি ঘোষণার মাধ্যমে তিনি দাসদের মুক্ত করে দেন । এই ইস্যুকে কেন্দ্র করে সংগঠিত মার্কিন গৃহযুদ্ধে তিনি ইউনিয়ন বাহিনীর নেতৃত্ব দিয়ে দক্ষিণের কনফেডারেট জোটকে পরাজিত করেন । এতে ৩৫ লাখ ক্রীতদাস মুক্ত হয় । গৃহযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে ১৮৬৩-এর নভেম্বর মাসে পেনসালভেনিয়া অঙ্গ রাজ্যের গেটিসবার্গে লিংকন একটি ভাষণ দেন ।

এই ভাষণই ইতিহাসে বিখ্যাত গেটিসবার্গ ভাষণ হিসেবে পরিচিত । এটিই পৃথিবীর রাজনৈতিক ইতিহাসে অন্যতম সেরা ভাষণ হিসেবে এখনও বিশ্বব্যাপী পরিচিত ।

লিংকন গণতন্ত্রের সংজ্ঞার অন্যতম প্রবক্তা। তার দেওয়া গণতন্ত্রের সংজ্ঞা ও নীতি আজও বিশ্বব্যাপী সমাদৃত ও সর্বজন গৃহীত। গণতন্ত্র সম্পর্কে তিনি বলেন, “The government is the people, for the people, by the people, shall not perish from the earth.” অর্থাৎ “সরকার হলো জনগণ, জনগণের জন্য, জনগণের দ্বারা, যা কখনোই ধ্বংস হবে না”।

তিনি তাঁর সন্তানকে স্কুলে পাঠিয়ে স্কুলের প্রধান শিক্ষক বরাবর একটি চিঠি লিখেছিলেন যা আজও শিক্ষকদের জন্য শিক্ষাদানের পথ-নির্দেশিকা হিসেবে প্রচলিত।
অনেকেই হয়ত সেই চিঠিটি সম্পর্কে জানা আছে,এবং উদাহরণ হিসাবে ও অনেক বার চিঠিক কথা উল্লেখ করি।কিন্তু সঠিক ভাবে কত জন তা বলতে পারি।
তাই আজ আবার তা যেন আমরা সঠিক ভাবে বলতে পারি তার জন্য বিশেষ ভাবে চিঠিটা আবার লেখা হলো।

আব্রাহাম লিংকনের ছেলের শিক্ষকের কাছে লেখা চিঠি নিচে দেওয়া হলো-



মাননীয় মহাশয়,
আমার পুত্রকে জ্ঞানার্জনের জন্য আপনার কাছে প্রেরণ করলাম। তাকে আদর্শ মানুষ হিসেবে গড়ে তুলবেন- এটাই আপনার কাছে আমার বিশেষ অনুরোধ।

আমার পুত্রকে অবশ্যই শেখাবেন – সব মানুষই ন্যায়পরায়ণ নয়, সব মানুষই সত্যনিষ্ঠ নয়। তাকে এও শেখাবেন প্রত্যেক খারাপ মানুষের মাঝেও একজন ভালো মানুষ বা বীর থাকতে পারে, প্রত্যেক স্বার্থবান রাজনীতিকের মাঝেও একজন নিঃস্বার্থ নেতা থাকে। তাকে শেখাবেন পাঁচটি ডলার কুড়িয়ে পাওয়ার চেয়ে একটি উপার্জিত ডলার অধিক মূল্যবান। এও তাকে শেখাবেন, কিভাবে পরাজয়কে মেনে নিতে হয় এবং কিভাবে বিজয়োল্লাস উপভোগ করতে হয়। হিংসা থেকে দূরে থাকার শিক্ষাও তাকে দিবেন। যদি পারেন নীরব হাসির গোপন সৌন্দর্য তাকে শেখাবেন। সে যেন আগেভাগেই এ কথা বুঝতে পারে- যারা পীড়নকারী তাদেরই সহজে কাবু করা যায়। বইয়ের মাঝে কি রহস্য আছে তাও তাকে বুঝতে শেখাবেন। আমার পুত্রকে শেখাবেন – বিদ্যালয়ে নকল করার চেয়ে অকৃতকার্য হওয়া অনেক বেশী সম্মানজনক। নিজের উপর তার যেন সুমহান আস্থা থাকে। এমনকি সবাই যদি সেটাকে ভুলও মনে করে। তাকে শেখাবেন, ভদ্রলোকের প্রতি ভদ্র আচরণ করতে, কঠোরদের প্রতি কঠোর হতে। আমার পুত্র যেন এ শক্তি পায়- হুজুগে মাতাল জনতার পদাঙ্ক অনুসরণ না করার। সে যেন সবার কথা শোনে এবং তা সত্যের পর্দায় ছেঁকে যেন ভালোটাই শুধু গ্রহণ করে- এ শিক্ষাও তাকে দিবেন।

সে যেন শিখে দুঃখের মাঝে কীভাবে হাসতে হয়। আবার কান্নার মাঝে লজ্জা নেই একথা তাকে বুঝতে শেখাবেন। যারা নির্দয়, নির্মম তাদের সে যেন ঘৃণা করতে শেখে। আর অতিরিক্ত আরাম-আয়েশ থেকে সাবধান থাকে।

আমার পুত্রের প্রতি সদয় আচরণ করবেন কিন্তু সোহাগ করবেন না। কেননা আগুনে পুড়েই ইস্পাত খাঁটি হয়। আমার সন্তানের যেন অধৈর্য হওয়ার সাহস না থাকে, থাকে যেন সাহসী হওয়ার ধৈর্য। তাকে এ শিক্ষাও দিবেন- নিজের প্রতি তার যেন সুমহান আস্থা থাকে আর তখনই তার সুমহান আস্থা থাকবে মানবজাতির প্রতি।

ইতি
আপনার বিশ্বস্ত আব্রাহাম লিংকন।

আব্রাহম লিংকনের এই চিঠিটা পড়ে নিজেরা বুঝে তারপর সন্তান, পরিবারে ও সবার ক্ষেত্রে সঠিক ভাবে বুঝাতে সহয়তা করলেই এই চিঠি লেখার স্বার্থকতা হবে।
আজ আমরা যে সময়ে জীবন যাপন করছি, সে সময়ে প্রয়োজন এই চিঠিটি।
এই চিঠির প্রয়োগে করলে, আমরা দিতে পারবো একটি সুন্দর জীবন,একটি সুন্দর সমাজ,একটি সুন্দর জাতি
এই প্রত্যাশা।

ডা.লরেন্স তীমু বৈরাগী।
বাংলা প্রভাষক
সফট-টেক ইন্স:অব মেডিকেল টেকনোলজি কলেজ।
বাদুরতলা, কুমিল্লা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
Theme Created By ThemesDealer.Com