শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:২৪ পূর্বাহ্ন
Logo

খ্রীষ্টিয়ান সম্প্রদায় মর্যাদার সাথে পালন করেছে পুন:শুক্রবার/গুড ফ্রাইডে-ওয়ার্ল্ড খবর২৪

রির্পোটারের নাম / ৭৯ বার
আপডেট সময় : শনিবার, ৩ এপ্রিল, ২০২১

গত ০২-০৪-২০২১খ্রী:রোজ শুক্রবার খ্রীষ্টিয়ান সম্প্রদায় মর্যাদার সাথে পালন করেছে পুন:শুক্রবার/গুড ফ্রাইডে অনুষ্ঠান।
যীশু খ্রীষ্টকে ক্রুশ বিদ্ধ অবস্থায় মুত্যু বরণ করতে হয়েছিল সমস্ত পৃথীবর পাপী মানবের জন্য এই বিশ্বাসে পালিত হয়েছে গুড ফ্রাইডে /পুন:শুক্রবার।
যীশু ক্রুশ বিদ্ধ অবস্থায় ৭টি বাণী করেছিলেন।

আর সেই বাণী গুলো হলো:-
সপ্তবাণী:
১|”পিত,এদের ক্ষমা কর,কারণ এরা কি করছে তা জানে না।”লূক ২৩:৩৪পদ।
২|”তুমি আজকেই আমার সঙ্গে পরমদেশে উপস্থিত হবে।”লূক২৩:৪৩পদ।
৩|”মাকে বললেন,ঐ দেখ,তোমার পুত্র।”যোহন১৯:২৬পদ।
৪|”এলী,এলী,লামা শাবক্তানী,’অর্থাৎ ঈশ্বর আমার, ঈশ্বর আমার, কেন তুমি আমাকে ত্যাগ করেছ?”মথি২৭:৪৬পদ।
৫|”আমার পিপাসা পেয়েছে।”যোহন১৯:২৮পদ।
৬|”সমাপ্ত হয়েছে।”যোহন১৯:৩০পদ।
৭|”যীশু উচ্চচি রবে চিৎকার করিয়া কহিলেন,”পিত আমি তোমার হস্থে আমার আত্মা সমর্পণ করি।”লূক২৩:৪৬পদ।
গুড ফ্রাইডের বর্নণা:-
যীশু খ্রীষ্টকে ক্রুশবিদ্ধ করে হত্যা করা হয়েছিল।
পবিত্র বাইবেলের-
মথি-২৬:৪৭-৫৬পদ,
মার্ক-১৪:৪৩-৫০পদ,
লূক-২২:৪৭-৫৩ পদ।
যীশুকে ক্রুশবিদ্ধ এবং তাঁকে ধরার যে ঘটনা তা পর্যায়ক্রমে ঘটেছিল,যা আজ আমরা এই প্রচারে ব্যাখ্যা প্রদান করব:
১.যীশুকে ধরিল,ও তাঁহাকে বন্ধন করিল।মথি-২৬:৪৭-৫৬ পদে)-এখানে দেখতে পাই যে,যীশুর বারো জন শিষ্যের এক জন শিষ্য ঈস্করিয়োতীয় যিহূদা এবং প্রধান যাজকরা ও লোকদের প্রাচীনবর্গ এবং বিস্তর লোক খড়্গ ও যষ্টি লয়ে যীশুকে ধরিতে আসলেন এবং যীশুকে যীহূদা রব্বি,নমস্কার বলে চুম্বন করিল।আর সেই চুম্বনের চিহ্ন দেখে যীশুকে দস্যুর ন্যায় ধরিল।
তবে আমাদের মনে রাখতে হবে যে, এ সমস্ত ঘটিল,যেন ভাববাদিগণের লিখিত বচনগুলি পূর্ণ হয়।
২. এর পর যীশুকে ধরে প্রথমে বিচারের জন্য নিয়ে যাওয়া হয় মহাযাজক কায়াফার কাছে। মথি২৬:৫৭ পদে।এই মহাযাজক ছিলেন, সমস্ত ধর্মীয় ব্যাপারে প্রধান নেতা।এই মহাসভার সদস্য ছিল ৭১ জন।সবাই ছিলেন হয় প্রধান যাজক বংশের মানুষ না হয় যীহূদী জাতির প্রবীণ নেতা, না হয় তখনকার সুপন্ডিত শাস্ত্রী।সেদিন মহাসভায় দুটি অধিবেশন বসেছিল:একটি রাতের বেলায়, মহাযাজক কায়াফার বাড়িতে যীশুকে নিয়ে আসার পর(মথি-২৬:৫৭,৫৯-৬৮পদ)।আর একটি ভোরের দিকে(মথি-২৭:১,২ পদে)।
৩.যীশু তার শিষ্য পিতর কর্তৃক অস্বীকার এবং সকল শিষ্যরা যীশুকে রেখে পালিয়ে গেল।
আজ আমরা এই দিনে পিতর এবং অন্যান্য শিষ্যদের ব্যর্থতাকে, বর্তমানে সেই সমস্ত পালক বা ধর্মিয় নেতারা যারা আত্মিক ও নৈতিক পতনের সঙ্গে তুলনা করতে পারি, যারা এই সময় আত্মিক ধর্মিয় কাজ থেকে দূরে সরিয়ে রেখেছে।
৪.মহাসভায় যীশুর দন্ডাজ্ঞা প্রদান।(মথি-২৭:১,২ পদ,মার্ক-১৫:১পদ,লূক-২২:৬৬-৭১ পদে)।
যীশুকে পিলাতের নিকটে সমর্পন করিল।
এটি যীশু খ্রীষ্টের দু:খভোগের তৃতীয় ধাপঃসকাল বেলায় যীশুকে যিরুশালেমে, পীলাতের সামনে নিয়ে আসা হয়,যীশুকে আরো প্রশ্ন ও জেরা করা হয়।২১ পদে দেখতে পাওয়া যায় যে,পৃথিবীর একজন ঘৃর্নিত ব্যক্তিকে যীশুর বিনিময় তাকে (বারব্বাকে) মুক্তি দেওয়া এবং যীশুকে কোঁড়া মেরে ক্রুশে দেওয়ার জন্য সমর্পন (২৬ পদে)।
৫.ঈস্করিয়োতীয় যিহূদার মৃত্যু(মথি২৭:৩-১০ পদে)
যিহূদা তার ভুল বুঝতে পেরে, অনুশোচনায় সেই ত্রিশ রৌপ্যমুদ্রা প্রধান যাজক ও প্রচাীনবর্গের নিকট ফিরিয়ে দিল,আর কহিল, নির্দ্দোষ রক্ত সমর্পণ করিয়া আমি পাপ করিয়ছি এবং বাহিরে গিয়ে গলায় দড়ি দিয় মরিল।
আজ আমাদের মনে রাখতে হবে যেন আমরা এরকম বড় কোন ভুল না করি। আর যদি করি তবে আমাদের অবস্থা ও হবে যিহূদার মতো।
৬.পীলাতের ও জনতার সামনে যীশুর বিচার।মথি-২৭:২পদ,১১-১৪ পদ,মার্ক-১৫:২-৫পদ,লূক-২৩:১-৫পদ,যোহন-১৮:২৮-৩৮পদ)
পীলাতের সবচেয়ে বড় পাপ ছিল,তিনি যা সত্য বলে জানতেন,তা তিনি তার অবস্থান,মর্যাদা ও ব্যক্তিগত লাভের আশায় আপোস করেছিলেন। পীলাত জানতেন যে, যীশু ছিলেন নির্দোষ। এই কথাটি তিনি কয়েকবারই ঘোষণা কনেছিলেন(১৮পদে যোহন-১৯:৪,৬পদে)।
৭.হেরোদের সামনে যীশুর বিচার(লূক-২৩:৬-১২ পদ)
এ সেই হেরোদ, যিনি যোহন বাপ্তাইজকের মস্তকচ্ছেদ করেছিলেন।হেরোদের হৃদয় কঠিন ছিল বলে যীশু তার সাথে কোন কথা বলে নি।এর ফলে হেরোদ ও তার লোকেরা যীশুর উপরে রেগে যায়,ও তাঁকে যিহূদীদের রাজা বলে ঠাট্টা করে।
এবং হেরোদ যীশুকে পীলাতের কাছে ফেরত পাঠান(২৭:১১-২৬পদে)
৮.যীশুকে ব্যঙ্গ, কশাঘাত ও নিষ্ঠুর্রড় ঠাট্টা করা হলো।(মথি-২৭:২৭-৩০পদে,মার্ক-১৫:১৬-১৯পদে;যোহন-১৯:২,৩ পদে)।
৯.কালভেরীর পথে যাত্রা করলেন যীশু।(মথি২৭:৩১-৩৪পদ,মার্ক১৫:২০-২৩পদ,লূক২৩:২৬-৩৩পদ)
১০.যীশু ক্রুশরোপণ(মথি২৭:৩৫পদ).
যীশু খ্রীষ্টের দু:খভোগের সপ্তম ধাপঃ
গলগথায় ক্রুশটি মাটিতে রেখে তার উপরে যীশুকে রাখা হল।যীশুর হাত দুটিকে দুপাশে লম্বা করে বড় পেরেক দ্বারা কব্জি দুটি ক্রুশের কাঠের সঙ্গে বিদ্ধ করা হল।
প্রথমে ডান হাত ও পরে বাম হাতের পেরেকগুলি কাঠের মধ্যে ঢুকানো হল।পরে ক্রুশটিকে সোজা করে দাঁড় করানো হলো যেন,তাঁর দেহটি টান হয়ে থাকে।
পরিশেষে যীশুর পা দুটিকে বড় পেরেক দ্বারা এক সঙ্গে ক্রুশ কাষ্ঠে করে দেয়া হয়।
যীশুর এখন এক করুন দৃশ্যের অবস্থা,রক্ত ভেজা শরীর,আহত ও সর্ব্বসাধারনের সামন্যে ক্রুশে ঝোলানো।
কোন পাপ না করেও আজ যীশু ক্রুশে বিদ্ধ হয়ে ঝুলে আছেন, আমাদের পাপের জন্য।

আজ আমরা উপলব্ধি করতে চাই যীশুর কষ্টের মৃত্যু-
যীশুর সমস্ত দেহ জুড়ে নিদারুন ব্যথা,হাতগুলো অবশ হয়ে যাচ্ছে যীশুর,মায়শপেশীগুলোতে মারাত্মক খিল ধরতে শুরু করেছে,পিঠের চামড়া ছিন্ন ভিন্ন;এই নিদারুন কষ্টের মধ্যে কয়েক ঘন্টা ক্রুশের উপরে যীশু ঝুলে রয়েছেন।বুকের তীব্র ব্যথা ও জলের অভাবে যীশুর হৃতপিন্ডটি ক্রমে সংকুচিত হয়ে আসছে,প্রচন্ড পানির পিপাসায় কষ্ট পাচ্ছে।
এভাবে কষ্ট পেতে পেতে যীশু মৃত্যুর কোলে ঢেলে পড়ল।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
Theme Created By ThemesDealer.Com