শুক্রবার, ২৫ জুন ২০২১, ১২:২৯ পূর্বাহ্ন
Logo
শিরোনাম :
১৪ জুন বিশ্ব রক্তদাতা দিবস-worldkhobor24 মুজিববর্ষ উপলক্ষে গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলায় ওয়াটার এন্ড স্যানিটেশন প্রকল্পের উদ্বোধন ও অবহিতকরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজ ৭ জুন ঐতিহাসিক ছয় দফা দিবস। শৈলেন হোমিও কেয়ারের নতুন স্থানে শুভ উদ্বোধন ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ইয়াস-ওয়ার্ল্ড খরব২৪ সাংবাদিক রোজিনাকে হেনস্তা ও গ্রেপ্তার এবং অবশেষে কারাগারে প্রেরণ ১৫ মে – বিশ্ব পরিবার দিবস। ইসরায়েলি এবং ফিলিস্তিনিদের মধ্যে লড়াই এখন যেরকম তীব্র হয়ে উঠেছে তা একটি “পূর্ণাঙ্গ যুদ্ধে” রূপ নিতে পারে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছে জাতিসংঘ। ওয়ার্ল্ড খবর২৪-এর পক্ষ থেকে সবাইকে ঈদ-উল-ফিতরের শুভেচ্ছা ও ভালোবাসা। একটা ঈদ বাড়িতে না করলে কী হয়’-মাননীয় প্রধানমন্ত্রী

মানুষের জীবন-জীবিকা দুটোই বাঁচাতে হবে-ডা.লরেন্স তীমু বৈরাগী

ডা.লরেন্স তীমু বৈরাগী / ৮১ বার
আপডেট সময় : রবিবার, ৭ মার্চ, ২০২১

জীবন-জীবিকা দুটোই বাঁচাতে হবে।
জীবন না জীবিকা কি?
এ নিয়ে সব সময়ে চলছে তর্ক-বিতর্ক। চলছে জীবন আর জীবিকার মধ্যে সংঘাত।
মনে হয় এমন কেউ বলছে, ‘দাঁড়াও, নিজেকে প্রশ্ন করো, কোন পক্ষে যাবে?’ জীবন না জীবিকায়।
কিন্তু দুটোই প্রয়োজন,
তবে এখন সবচেয়ে বড় সমস্যা হলো মানুষের জীবন বাঁচানো। কারণ এখনও মহামারি করোনা ভাইরাসের হাত থেকে রক্ষা পাওয়া যাচ্ছে।
অদূর ভবিষ্যতে আরো বড় সমস্যা হয়ে দেখা দিতে পারে, যদি না আমরা দুটোর উপর গুরুত্ব না দি।
আজ আমরা প্রাণ বাঁচাতে যা করছি, তার পরিণাম বড় হতে হতে যেন ভবিষ্যতে জীবিকা হারানোর কারণ হয়ে না দাঁড়ায়, তা দেখতে হবে।

★ মন্দায় অর্থনীতি সারা বিশ্ব :

তবে জীবন ও জীবিকাকে একসঙ্গে বাঁচানোর কাজটি সহজ হবে না। বিশ্ব অর্থনীতি মন্দার মধ্যে ঢুকে গেছে করোনার কারণ,তা আজ বিশ্ববাসী দেখতে পারছে।
এই করোনার কারণে জীবন বাঁচাতে ঘরে বসে থাকার সময় যত দীর্ঘ হবে, অর্থনৈতিক সংকট তত বাড়তে থাকবে।
দীর্ঘদিন করোনার কারণে, অনেক প্রাণহানি ও আক্রান্ত হচ্ছে,তাই বিশ্ব অর্থনীতির পতন ঘটেছে।
ধনী দেশগুলোও আস্তে আস্তে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে সব কিছু।
অর্থনীতিতে অনিশ্চয়তা দেখা দিলে ভোক্তারা কেনাকাটা কমিয়ে দেয়। কারণ, এ সময় আয় কমে যাচ্ছে , চাকরি চলে যাচ্ছে অনেকের এবং সামনের দিনে আরও চাকরি চলে যেতে পারে—এই আশঙ্কাও থাকে।
মানুষ হাতে থাকা অর্থ খরচ করতে চায় না বলে সামগ্রিক চাহিদায় ধস নামে। ফলে নতুন বিনিয়োগ কমে যায়, নতুন চাকরিও তৈরি হয় না। তখন মন্দা আরও তীব্র হয়। এ রকম এক সময়ে অর্থনীতির পুনরুদ্ধারের মূল লক্ষ্য হচ্ছে মানুষের হাতে টাকা রাখার ব্যবস্থা করা। বিভিন্ন দেশ তাই এরই মধ্যে বিপুল পরিমাণ অর্থের তহবিল গঠনের ঘোষণা দিচ্ছে।

★ কী করতে হবে?

এই সমস্যার থেকে রক্ষা পাওয়ার একমাত্র সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার হচ্ছে স্বাস্থ্য খাতে বিনিয়োগ। চিকিৎসক ও নার্সদের বেতন-ভাতা, সহায়ক হাসপাতাল ও জরুরি কক্ষ তৈরি, দ্রুত বানানো ও স্থানান্তর করা যায় এমন ক্লিনিক প্রতিষ্ঠা, সব ধরনের নিরাপত্তাসহ প্রয়োজনীয় উপকরণের ব্যবস্থা করা এবং নিয়মিত হাত ধুতে হবে এমন অতিসাধারণ সচেতনতামূলক প্রচারণা চালিয়ে যাওয়া—এসবই হচ্ছে এই মুহূর্তে সবচেয়ে জরুরি বিনিয়োগ। আর জীবিকা বাঁচাতে প্রয়োজন লক্ষ্যভিত্তিক সহায়তা প্রদান। এর মধ্যে থাকবে নগদ সহায়তা, বেতনে ভর্তুকি, স্বল্পমেয়াদি কাজের ব্যবস্থা করা, বেকারদের জন্য কর্মসূচি তৈরি এবং ঋণ করার ব্যয় কমানো। আবার যেসব দেশে অনানুষ্ঠানিক খাত বড়, যাদের জীবিকা প্রতিদিনকার মজুরির ওপর নির্ভরশীল, সেসব দেশে বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া জরুরি। কেননা, সেখানে সামাজিক দূরত্ব পালন করে যাওয়া কঠিন একটি কাজ।

বাংলাদেশে মোট শ্রমশক্তির বড় অংশই কাজ করে অনানুষ্ঠানিক খাতে। সুতরাং বিপর্যয় ও মন্দার এই সময়ে কাদের বিশেষ সহায়তা লাগবে এবং কী ধরনের সহায়তা লাগবে, সে পরিকল্পনা তৈরি করা হবে প্রথম কাজ। তা ছাড়া, কেবল রপ্তানিমুখী শিল্পের জন্য ৫ হাজার কোটি টাকার তহবিল অর্থনীতিকে চাঙা করতে পারবে না। কাদের সহায়তা দেওয়া হবে, এই কাজটি ঠিক করার পর দুটি প্রশ্নের সমাধান করতে হবে।
যেমন অর্থ আসবে কোথা থেকে এবং সেই অর্থ সঠিক মানুষটির কাছে পৌঁছে দেওয়ার প্রক্রিয়া কী হবে।
আজ প্রতিটি মানুষকেই জীবন জীবিকার জন্য সংগ্রাম করতে হচ্ছে,আর এই সংগ্রামে যুদ্ধ করতে করতেই জীবন হারিয়ে যাচ্ছে অনেক মানুষ।
তাই আসুন আমরা আমাদের দুটোর উপরেই গুরুত্ব দি।
ডা.লরেন্স তীমু বৈরাগী
সম্পাদক
ওয়ার্ল্ড খবর২৪


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
Theme Created By ThemesDealer.Com