মঙ্গলবার, ০২ মার্চ ২০২১, ১০:২৪ পূর্বাহ্ন
Logo
শিরোনাম :
হোমিও চিকিৎসা সেবায় একুশে স্মৃতি শান্তি সম্মাননা-২০২১ পেলেন ডা.লরেন্স তীমু বৈরাগী। খ্রীষ্টিয়ান সম্প্রদায়ে চার সন্তান পেলেন Dip CM সার্টিফিকেট -ওয়ার্ল্ড খরব। খ্যাতিমান সাংবাদিক-কলামিস্ট, গবেষক ও নাগরিক আন্দোলনের নেতা সৈয়দ আবুল মকসুদ আর নেই। জেনে নিন কে এই রুনু বেরোনিকা কস্তা ?ডা.লরেন্স তীমু বৈরাগী।ওয়ার্ল্ড খবর২৪ প্রথম টিকা নেবেন কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের সিনিয়র স্টাফ নার্স রুনু বেরোনিকা কস্তা। Joe Biden on Donald Trump’s impeachment trial: ‘It has to happen’ নতুন-পুরাতন মধ্যে এক অবসানহীন দ্বন্দ্ব। সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে হবে এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা বন্দীর নারীসঙ্গ কেলেংকারির জেরে ৪ কারা কর্মকর্তা প্রত্যাহার, আরেকজনকে প্রত্যাহারের সুপারিশ নিয়মিত ক্লাস হবে দশম ও দ্বাদশে, বাকিদের সপ্তাহে এক দিন

বাংলাদেশের সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন ব্যাংককে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন -ওয়াল্ড খবর২৪

স্টাফ রিপোর্টস / ১৯৪ বার
আপডেট সময় : শুক্রবার, ১০ জুলাই, ২০২০

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য, সাবেক বাংলাদেশের সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও বর্তমান সংসদ সদস্য সাহারা খাতুন আর নেই।
গত কাল বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১১টায় তিনি থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাংককের একটি হাসপাতালে মারা যান (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।
তাঁর বয়স হয়েছিল ৭৮ বছর।

সাহারা খাতুন কিডনি ও শ্বাসতন্ত্রের জটিলতায় ভুগছিলেন। গত সোমবার এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে করে তাঁকে ব্যাংককের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে তিনি চিকিৎসাধীন ছিলেন।

সাহারা খাতুনের পরিচয়:
সাহারা ১৯৪৩ সালের ১ মার্চ ঢাকার কুর্মিটোলায় জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা-মাতা হলেন যথাক্রমে, আব্দুল আজিজ ও টুরজান নেসা। তিনি বি.এ এবং এল.এল. বি ডিগ্রী আর্জন করেন। তিনি আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য, বাংলাদেশ আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, এবং বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক। এছাড়াও তিনি আন্তর্জাতিক মহিলা আইনজীবী সমিতি ও আন্তর্জাতিক মহিলা জোটের সদস্য। তিনি বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টে একজন আইনজীবী হিসেবে তার কর্মজীবন শুরু করেন।
রাজনৈতিক জীবন:
সাহারা খাতুন ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব পান। এরপর তিনি ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীর দায়িত্বও পালন করেন। তিনি ঢাকা-১৮ সংসদীয় আসনে পরপর তিনবার নির্বাচিত হন।
রাজনৈতিক জীবন:
সাহারা খাতুন ছাত্র জীবনেই রাজনীতিতে যুক্ত হন।তিনি বর্তমানে একজন সংসদ সদস্য। তিনি বাংলাদেশ সরকারের প্রথম মহিলা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী, এবং ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী নির্বাচিত হয়েছিলেন।

সাধারণ নির্বাচন, ২০০৮ :
সাহারা খাতুন আবারো গ্রেফতার হন বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে। তিনি হলেন কল্যাণমূলক রাজনীতির অগ্রদূত ও শেখ হাসিনার প্রিয় ব্যক্তি।[৯] তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় সাহারা নিজে রাজনৈতিক অপরাধে অভিযুক্ত হয়েছিলেন।[১০]

নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচন, ২০০৮ এর নির্বাচনি তথ্য বের হলে দেখা যায়, তিনি আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে ঢাকা-১৮ হতে নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি আনন্দিত হয়ে জনগণকে তার দেয়া প্রতিশ্রুতি; সড়ক পুননির্মাণ ও ড্রেন সংস্করণের কথা পুনরায় ব্যক্ত করেন। বিজয় লাভ করার পর। আর তিনি বাংলাদেশ সরকারের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী মনোনীত হন। তিনি ৬ ই জানুয়ারি ২০০৯ সালে তার দফতরে প্রবেশ করেন। ২০১২ সালে মন্ত্রণালয়ের রদবদল ঘটলে তিনি বাংলাদেশ সরকার এর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় হতে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব গ্রহণ করেন।
মৃত্যু:
৯ই জুলাই ২০২০ সালে ব্যাংককের বামুনগ্রাড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন।এর আগে তিনি ২রা জুন ২০২০ সাথে বার্ধক্যজনিত কারণে অসুস্থ হয়ে পড়ায় তাকে প্রথমে ঢাকার গুলশানে ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ভর্তির পর অবস্থার অবনতি হলে তাকে থাইল্যান্ডের ব্যাংককে বামুনগ্রাড হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।
শোক প্রকাশ:

প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ও আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া প্রথম আলোকে বলেন, সাহারা খাতুনের মরদেহ কবে বাংলাদেশ আনা হবে, তা শুক্রবার দিনের বেলায় ঠিক হবে। থাইল্যান্ডে বাংলাদেশ দূতাবাসের সঙ্গে যোগাযোগ হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, সাহারা খাতুন দলের ত্যাগী নেতা। তাঁর অসুস্থতায় প্রধানমন্ত্রী নিজে উদ্যোগী হয়ে চিকিৎসার জন্য ব্যাংককে পাঠান। তাঁর মৃত্যু আওয়ামী লীগের জন্য অপূরণীয় ক্ষতি।

এদিকে সাহারা খাতুনের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রীর প্রেস উইংয়ের পক্ষ থেকে গণমাধ্যমে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়।

শোকবার্তায় প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক হিসেবে সাহারা খাতুন গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা ও মানুষের অধিকার আদায়ের সংগ্রামে আজীবন কাজ করে গেছেন। দলের দুঃসময়ে নেতা–কর্মীদের পাশে থেকে আইনিসহ সব সাহায্য-সহযোগিতা দিয়েছেন তিনি। শেখ হাসিনা আরও বলেন, ‘তাঁর মৃত্যুতে দেশ ও জাতি একজন দক্ষ নারী নেত্রী এবং সৎ জননেতাকে হারাল। আমি হারালাম এক পরীক্ষিত ও বিশ্বস্ত সহযোদ্ধাকে।’ প্রধানমন্ত্রী মরহুমার আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন এবং তাঁর শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

শোক প্রকাশ করেছেন,বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় “ধর্ম বিষয়ক” উপ-কমিটির সহ-সম্পাদক, বাংলাদেশ-ভারত মৈত্রী সমিতি কুমিল্লা জেলার সভাপতি মো:শাহজাহান বিপ্লব।
শোক প্রকাশ করেছেন,
“স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক” কেন্দ্রীয় উপ-কমিটি সদস্য বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ,বাংলাদেশ-ভারত মৈত্রী সমিতি কুমিল্লা জেলার সাধারন সম্পাদক, হোমিওপ্যাথি সেবা সংঘের সভাপতি,স্বাধীনতা হোমিওপ্যাথি চিকিৎসার পরিষদের সহ-সভাপতি, রিভাইভ্যাল ব্যাপ্টিষ্ট চার্চের সহ-পালক ডা.লরেন্স তীমু বৈরাগী।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
Theme Created By ThemesDealer.Com