বুধবার, ২৫ নভেম্বর ২০২০, ০৪:৪৮ অপরাহ্ন
Logo
শিরোনাম :
অবশেষে পরাজয় মেনে নেওয়ার প্রক্রিয়া করছেন ট্রাম্প। ২৫ পৌরসভায় নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা, ভোট ২৮ ডিসেম্বর কুমিল্লায় বৃদ্ধি পাচ্ছে করোনায় আক্রান্ত সংখ্যা। ‘শুধু রাজস্ব আদায় নয়, নাগরিক সেবাও বাড়াতে হবে’-ওয়ার্ল্ড খবর২৪ সিলেটে বিদ্যুৎ কেন্দ্রে ভয়াবহ আগুন-ওয়ার্ল্ড খবর২৪ যে ধর্মেরই হোন না কেন, আমরা সবাই বাঙালি: সজীব ওয়াজেদ।ওয়ার্ল্ড খবর২৪ যুবলীগের ২০১ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। তীব্র গতিতে ছুটে আসছে তাজমহলের দ্বিগুণ গ্রহাণু, পৃথিবীর কাছ দিয়ে বেরিয়ে যাবে কাল। বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস আজ-ওয়ার্ল্ড খবর২৪ কুমিল্লায় ফিল্মি স্টাইলে গুলি ও কুপিয়ে যুবলীগ কর্মী খুন।

দিন দিন কোলন(Colon Cencer) ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ছে?Dr.Lorance Timo Bairagi.

Dr.Lorance Timo Bairagi. / ৬৯ বার
আপডেট সময় : শনিবার, ১২ সেপ্টেম্বর, ২০২০

তরুণদের মধ্যে কি কোলন ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ছে?
বিভিন্ন ক্যান্সারজনিত কারন যেমন পরিবেশ বা বংশগত প্রভাবের কারণে মলাশয়ের মিউকোসাল এপিথেলিয়ামের টিউমারটি ম্যালিগন্যান্ট টিউমারে পরিণত হলে তখন তাকে কোলন বা মলাশয়ের ক্যান্সার বলে। এটি সাধারণত মলাশয় এবং মলদ্বারের সংযোগস্থানে হয়। সম্ভাবনার দিক দিয়ে গ্যাস্ট্রিক, খাদ্যনালী এবং কোলন ক্যান্সারের মধ্যে এর স্থান দ্বিতীয়। সাধারণত ৪০-৫০ বছর বয়সী রোগীদের ক্ষেত্রে এই ক্যান্সার বেশী দেখা যায়। এবং ৪০ বছরের নিচে কোলন ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা১৫%। পুরুষ এবং নারী ভেদে এর অনুপাত হল ২ঃ১।

আমরা যদি পিছনের দিকে ফিরে তাকাই তাহলে দেখতে পাবো, হলিউডের ‘ব্ল্যাক প্যান্থার’ সিনেমায় প্রধান ভূমিকায় অভিনয় করা চ্যাডউইক বোসম্যান ৪৩ বছর বয়সে কোলন বা মলাশয়ের ক্যান্সারে মারা যাওয়ার পর এই বিশেষ ধরণের ক্যান্সার সম্পর্কে সোশ্যাল মিডিয়ায় আলোচনা করতে দেখা গেছে ব্যবহারকারীদের।
তুলনামূলক কম বয়সে মানুষের মধ্যে কোলন ক্যান্সারের হার কেন বাড়ছে, ঠিক কী কী কারণে কোলন বা কোলোরেকটাল ক্যান্সার হয়ে থাকে – এই ধরণের বিষয়গুলো নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় খোঁজখবর নিচ্ছেন এবং আলোচনা করছেন অনেকে।

আমেরিকান ক্যান্সার সোসাইটির ২০১৭ সালের এক গবেষণায় দেখা যায় যে যুক্তরাষ্ট্রে প্রাপ্তবয়স্ক তরুণদের মধ্যে কোলন ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার গড় বয়স কমছে।
আমেরিকান ক্যান্সার সোসাইটির তত্বাবধান বিভাগের প্রধান এবং গবেষণা নিবন্ধটির একজন লেখক রেবেকা সিগেল সিএনএন’কে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন, “বিজ্ঞানীরা জানতেন যে তরুণদের মধ্যে কোলোরেকটাল ক্যান্সার শনাক্ত হওয়ার হার বাড়ছে। কিন্তু এত দ্রুতগতিতে এটি হচ্ছে, সেটা জানতে পেরে আমরা বিস্মিত হয়েছি।”

তখন মিজ. সিগেল বলেন, “এই রিপোর্টটি গুরুত্বপূর্ণ, কারণ এটি যে শুধু বর্তমানের ক্যান্সার পরিস্থিতির চিত্র তুলে ধরে তাই নয়, ভবিষ্যৎ সম্পর্কেও আমাদের ধারণা দেয়।”

তিনি মন্তব্য করেন প্রাপ্তবয়স্ক তরুণদের মধ্যে কোলন ক্যান্সার শনাক্ত হওয়ার হার বাড়তে থাকলে তাদের সন্তান জন্মদানের ক্ষমতা ও যৌন ক্ষমতা অক্ষুণ্ণ রাখা নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে ডাক্তাররা নতুন ধরণের চ্যালেঞ্জের মুখে পড়বেন।

পাশাপাশি তরুণরা আক্রান্ত হলে দীর্ঘ মেয়াদে তাদের চিকিৎসা চালিয়ে যেতে হয়, যেই ক্ষেত্রে দীর্ঘসময় ধরে চিকিৎসার পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াগুলোর বিষয়েও নতুন চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে হবে চিকিৎসকদের।

কোলন ক্যান্সারের কারণ:
—————-
যুক্তরাজ্যের স্বাস্থ্য সেবা ব্যবস্থা এনএইচএস’এর তথ্য অনুযায়ী কোলন ক্যান্সারের নির্দিষ্ট কোন কারণ জানা যায় না, তবে কিছু কিছু বিষয় এই ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়াতে পারে।
সেগুলো হল:
১ খাদ্যাভ্যাস বা ডায়েটঃ
চর্বি জাতীয় খাবার বেশী এবং আঁশ জাতীয় খাবার কম খেলে এই ক্যান্সার হতে পারে।

২. বংশগত প্রভাবঃ
পূর্বে পরিবারের কারো এই ক্যান্সার হয়ে থাকলে অন্যদেরও হওয়ার ঝুঁকি থাকে।
পরিবারের কোনো সদস্যের (বাবা, মা বা ভাই, বোন) যদি ৫০ এর কম বয়সে কোলন ক্যান্সার হয়, তাহলে ঐ ব্যক্তিরও ক্যান্সারের সম্ভাবনা বাড়ে।

৩. কোলন পলিপসঃ
মলদ্বার বা মলাশয়ের ভেতরকার দেয়ালে পলিপ্‌স জন্মায় যা প্রথম দিকে বিনাইন টিউমার হিসেবে থাকে কিন্তু পরবর্তীতে ম্যালিগন্যান্ট হয়ে যেতে পারে।

৪. আলসার জনিত প্রদাহঃ
যাদের আলসার জনিত প্রদাহ থাকে তাদের ক্ষেত্রে এই ক্যান্সার হবার সম্ভাবনা অন্যদের থেকে ৩০ গুন বেশী
৫.বয়স জনিত কারণে :
কোলন ক্যান্সারে ভুগতে থাকা প্রতি ১০ জনের ৯ জনের বয়সই ৬০ বা তার চেয়ে বেশি।
৬.ওজন –
অতিরিক্ত ওজন যাদের রয়েছে, তাদের মধ্যে এই ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে।

৪.ব্যায়াম –
যথেষ্ট শারীরিক পরিশ্রম না করা হলে কোলন ক্যান্সারের ঝুঁকি বৃদ্ধি পায়।

৫. মদ্যপান ও ধূমপান –
মদ্যপান ও ধূমপান কোলন ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়াতে পারে।

এছাড়া মলত্যাগের জন্য হাই কমোড ব্যবহার করা কোলন ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়াতে পারে বলে উঠে আসে ২০১২ সালে যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের জার্নালে প্রকাশিত হওয়া এক গবেষণায়। গবেষণাটি ২০০৭ থেকে ২০০৯ পর্যন্ত তেহরানের ১০০ জন কোলন ক্যান্সারে আক্রান্ত রোগীর তথ্য নিয়ে তৈরি করা হয়েছিল।

★ কোলন ক্যান্সারের উপসর্গ:
——————-
এনএইচএস’এর ওয়েবসাইটের তথ্য অনুযায়ী কোলন ক্যান্সারের প্রধান উপসর্গ তিনটি।
সেগুলো হল:
———
১. মলের সাথে নিয়মিত রক্ত নির্গত হওয়া – মলের সাথে রক্ত নির্গত হয় সাধারণত পাকস্থলীর কার্যক্রমে পরিবর্তন হলে।

২.পাকস্থলীর কার্যক্রমে দীর্ঘমেয়াদি পরিবর্তন – এরকম সময়ে রোগী সাধারণ সময়ের চেয়ে বেশি মলত্যাগ করে এবং মল অপেক্ষাকৃত তরল হয়ে থাকে।

৩.তলপেটে ক্রমাগত ব্যাথা, পেট ফোলা বা অস্বস্তি বোধ করা – এই উপসর্গের সাথে সাধারণত খাদ্যাভ্যাসে পরিবর্তন, খাওয়ার রুচি হারানো বা ওজন হারানোর সংশ্লিষ্টতা থাকে।

কোলন ক্যান্সার সাধারণত কাদের হয়:
————————–
১. বংশে কারো পলিপোসিস হবার ইতিহাস থাকলে অন্যদের কোলন ক্যান্সার হতে পারে।
২. কারো বাবা-মা, ভাই-বোনের এই ক্যান্সার হয়ে থাকলে তারও হতে পারে।
৩. দীর্ঘদিনযাবৎ আলসারের ব্যথায় ভুগলে এই ক্যান্সার হবার সম্ভাবনা থাকে।
৪. ক্রনিক ডায়রিয়া এবং কোষ্ঠকাঠিন্য এর কারনেও এই ক্যান্সার হতে পারে।

কোলন ক্যান্সারের লক্ষণ কি?
——————–
১. পায়খানার সাথে লাল বা গাঢ় লাল রঙের রক্ত দেখা গেলে।
২. পেত ব্যথা বা ফেঁপে ওঠা, হজমে সমস্যা ও অরুচি।
৩. পায়খানায় যে কোন ধরনের পরিবর্তন যেমন কোষ্ঠকাঠিন্য,ঘন ঘন পায়খানা এমনকি ডায়রিয়া।
৪.স্বাভাবিক এর থেকে অতিরিক্ত পায়খানা হলে।
৫. মলাশয়ে ঘা বা অনবরত পেট ব্যথা।
৬. লিভার জনিত বিভিন্ন অসুখ যেমন জন্ডিস, লিভারে পানি জমা হওয়া ইত্যাদি।

কোলন ক্যান্সারের বিভিন্ন পর্যায়ঃ
———————-
স্টেজ০: এই ধাপে মলদ্বারের সংলগ্ন টিস্যু গুলোতে অস্বাভাবিক পরিবর্তন লক্ষ্য করা যায়। একে ক্যান্সারের প্রাথমিক পর্যায় ও বলা হয়।
স্টেজ ১: এই ধাপে ক্যান্সার মলদ্বারের উপরিস্থল ভেদ করে দ্বিতীয় স্তরে প্রবেশ করে।
স্টেজ ২: এই ধাপে ক্যান্সার মলদ্বারের পেশী পর্যন্ত পৌছায় কিন্তু লসিকা গ্রন্থি পর্যন্ত তখনও পৌছায় না।
স্টেজ ৩: এই ধাপে ক্যান্সার লসিকা গ্রন্থিতে পৌঁছে যায় কিন্তু শরীরের অন্যান্য অংশে তখনও পৌছায় না।
স্টেজ ৪: এই ধাপে ক্যান্সার অন্যান্য অংশ যেমন লিভার, ফুসফুস, জরায়ু, পেটের পর্দা প্রভৃতিতে ছড়িয়ে পড়ে।
পুনরাবৃত্তিঃ ট্রিটমেন্টের পর আবারও কোলন ক্যান্সারের পুনরাবৃত্তি ঘটতে পারে।

এছাড়া ডায়রিয়া বা কোষ্ঠকাঠিন্য, মলত্যাগ করার পরও বারবার মলত্যাগের ইচ্ছা হওয়া বা রক্তে আয়রনের স্বল্পতার মত উপসর্গও দেখা যায় কোলন ক্যান্সারে।

বাংলাদেশে কোলন ক্যান্সারের চিত্র কী?
—————————-
দেশে কী পরিমাণ মানুষের মধ্যে কোলন ক্যান্সার শনাক্ত হয়েছে, সেসম্পর্কে নির্দিষ্ট কোনো পরিসংখ্যান না থাকলেও দেশের জাতীয় ক্যান্সার রিসার্চ ইনস্টিটিউটের ২০১৪ সালের রিপোর্ট অনুযায়ী দেশে মোট ক্যান্সার আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে ১৯.২ ভাগ পরিপাকতন্ত্রের ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে থাকে।

জাতীয় ক্যান্সার গবেষণা ইনস্টিটিউটের এপিডেমিওলজি বিভাগের প্রধান হাবিবুল্লাহ তালুকদার বলেন, “দেশে ক্যান্সার পরিস্থিতির বিস্তারিত বিশ্লেষণ বা কোন ধরণের ক্যান্সারে মানুষ বেশি ভুগে, এই বিষয়ে সাম্প্রতিক তথ্য না থাকলেও কমবয়সীদের মধ্যে আজকাল কোলন ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার হার কিছুটা বেশি বলে লক্ষ্য করা যাচ্ছে বলে আমরা ধারণা করছি।”

আর মলত্যাগে হাই কমোডের ব্যবহার কোলন ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ায় কি না, এই বিষয়ে এখনো সেভাবে কোনো গবেষণা না থাকলেও মলত্যাগের পদ্ধতির সাথে কোলন ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ার সম্পর্ক থাকার সম্ভাবনা রয়েছে।”

তবে “আমাদের ধারণা, হাই কমোডে বসে মলত্যাগ করলে মলাশয় পুরোপুরি পরিষ্কার হয় না। প্রয়োজনীয় চাপ না পড়ায় মলদ্বারে কিছুটা মল থেকে যায়। আর মলে অসংখ্য জীবাণু থাকে, আর সেই জীবাণু সেখানে থেকে যাওয়ায় কোলন ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ার সম্ভাবনা তৈরি হতে পারে।”

কিভাবে কোলন ক্যান্সার নির্ণয় করা হয়?
—————————–
১. ডিজিটাল রেক্টাল এক্সামঃ এক্ষেত্রে ডাক্তার পায়ু পথ হাত দিয়ে পরীক্ষা করেন যে কোন মাংসপিণ্ড আছে কিনা।
২. ফেকাল অকাল ব্লাড টেস্টঃ এই পদ্ধতিতে পায়খানার সাথে রক্ত গেলে তা পরীক্ষা করে জানা যায় কোন ক্যান্সার কোষ আছে কিনা। যদি অনেকগুলো পরীক্ষার পরও কোন ক্যান্সার ধরা না পড়ে তাহলে বুঝতে হবে হজম প্রক্রিয়ার সাথে সংশ্লিষ্ট কোন প্রত্যঙ্গে রক্তক্ষরণ হচ্ছে এবং এক্ষেত্রে দ্রুত অন্য পরীক্ষা করাতে হবে।
৩. এক্স-রে টেস্টঃ এর মাধ্যমে হজম প্রক্রিয়ার সাথে সংশ্লিষ্ট প্রত্যঙ্গ গুলোতে কোলন এর অস্তিত্ব বোঝা যায়। সেখানে একাধিক পলিপ বা ক্যান্সারের একাধিক কেন্দ্র বিন্দু আছে কিনা তাও জানা যায়।
৪. কোলনোস্কপিঃ মলের সাথে রক্ত দেখা গেলে, পায়খানায় পরিবর্তন লক্ষ্য করা গেলে এবং ডিজিটাল রেক্টাল এক্সামের পর পসিটিভ ফল আসলে সেক্ষেত্রে এই পরীক্ষা করা হয়। মলাশয়ে কোন ক্ষত আছে কিনা তা এই পরীক্ষার মাধ্যমে দেখা হয় এবং কোন ক্ষত পাওয়া গেলে ঐ অংশের টিস্যু নিয়ে বায়প্সি করা হয়।
৫. আলট্রাসনোগ্রাফি,সি.টি. স্ক্যান, এম.আর.আই.: এগুলোর মাধ্যমে সরাসরি ক্যান্সার সনাক্ত করা না গেলেও ক্যান্সারের উৎস, কেন্দ্রস্থল, আকৃতি ইত্যাদি নির্ণয় করা যায়।

কোলন ক্যান্সারের কি কি চিকিৎসা আছে?
——————————
১. সার্জারিঃ এটি কোলন ক্যান্সারের জন্য খুবই প্রচলিত একটি চিকিৎসা পধতি যা প্রাথমিক পর্যায়ের ক্যান্সার রোগীদের ক্ষেত্রে করা হয়। এর মাধ্যমে মলদ্বারের কিছু অংশ অথবা সম্পূর্ণ মলদ্বারই কেটে ফেলা হয়।

২. রেডিয়েশন থেরাপিঃ এটি সাধারণত সার্জারির পর দেওয়া হয় যাতে ক্যান্সার কোষ গুলো পুরোপুরি ধ্বংস হয়ে যায়।
৩. কেমোথেরাপিঃ এটিও ক্যান্সার কোষ পুরোপুরি ধ্বংস করতে এবং পুনরাবৃত্তি ঠেকাতে সার্জারির পর দেওয়া হয়।
৪. বায়োলজিক্যাল ইমিউনোথেরাপিঃ এটি ব্যথা এবং জটিলতা মুক্ত একটি থেরাপি যা রেডিও থেরাপির ফলে সৃষ্ট পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দূরীকরণের সাথে সাথে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকেও শক্তিশালী করে।

অপারেশনের পর রোগীর কি কি যত্ন নিতে হবে?
———————————-
১. পোশাক-পরিচ্ছদঃ খুবই হালকা এবং আরামদায়ক পোশাক পরতে হবে এবং বেল্ট ব্যবহারের ক্ষেত্রে বাড়তি সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে।
২. গোসলঃ সম্পূর্ণ ক্ষত সেরে যাওয়ার পর রোগীকে গোসল করানো যেতে পারে।
৩. ডায়েটঃ রোগীকে পুষ্টিকর খাবারের সাথে তাজা ফলমূল ও শাকসবজি খাওয়াতে হবে।
৪. ব্যায়াম ঠাণ্ডার সহনশীলতা বাড়াতে এবং শরীরকে স্বাভাবিক করতে প্রয়োজনীয় ব্যায়াম করতে হবে।
৫. মানসিক সাহায্য রোগীকে হতাশা ও দুশ্চিন্তা মুক্ত রাখতে হবে এবং সে যেন সব সময় হাসি খুশি থাকে তার ব্যবস্থা করতে।

তাই আসুন আমরা প্রতিদিনের খাবারে ভিটামিন যুক্ত খাবার খাই,বাইরের খাবার পরিহার করি,সুস্থ জীবন যাপন করি।
ডা.লরেন্স তীমু বৈরাগী
শৈলেন হোমিও কেয়ার
বাদুরতলা (চার্চ কম্পাউন্ড) কুমিল্লা।
01922814090
E-mail -lorencetimo@gmail.com


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
Theme Created By ThemesDealer.Com